বাংলাদেশে মাসিক স্বাস্থ্যবিধি ব্যবস্থাপনা: প্রয়োজন আরো বিস্তৃত এবং অন্তর্ভুক্তিমুলক কার্যাবলী

এই পোস্টটি ইংরেজিতে পড়তে চাইলে এই লিংকে ক্লিক করুন

বাংলাদেশের ন্যাশনাল হাইজিন সার্ভে ২০১৮ তে দেখা যায় যে দেশের মাত্র শতাংশ স্কুলে মাসিক স্বাস্থ্যবিধি ব্যবস্থাপনা  নিয়ে শিক্ষা প্রদান করা হয়।  বাকি স্কুলগুলোয় শিক্ষকরা এই বিষয়ে কথা বলা অনেকটা ইচ্ছাকৃতভাবেই এড়িয়ে যান। গার্হস্থ্য অর্থনীতি বইয়ের এই সম্পর্কিত চ্যাপ্টারটি নিয়ে বলা হয়, “বাড়ি থেকে পড়ে এসো!” একই সার্ভেতে আরো দেখা যায় যে মাত্র ৫৩ শতাংশ স্কুলছাত্রী মাসিকের ব্যাপারে অবগত। অর্থাৎ প্রায় ৪৭ শতাংশ শিক্ষার্থী নিজের প্রথম মাসিক হওয়ার আগ অব্দি মাসিক নিয়ে জানেই না। আর যারা জানে—তারাও সঠিক তথ্য জানে না। যতটা সত্যি, তার সাথে যুক্ত থাকে ততটা, বা তার চেয়ে বেশি কুসংস্কার।  

কিশোরীদের বাইরে গেলেও মাসিক স্বাস্থ্যবিধি ব্যবস্থাপনা নিয়ে, হোক তা শহর কিংবা কোনো প্রান্তিক অঞ্চল, জরিপের ফলাফল কখনই সুখকর তথ্য প্রদান করেনি। ২০০৮ সালে ওয়াটারএইড বাংলাদেশের একটি বেসলাইন স্টাডিতে জানা যায়, ঢাকার বস্তিতে থাকা ৯৫ শতাংশ নারী মাসিকের সময় কাপড় ব্যবহার করেন। তারও বছর দশেক পরে, ২০১৮ সালে মাসিক স্বাস্থ্য দিবস উপলক্ষে প্রথম আলোর একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দেশের প্রায় সাড়ে ৪ কোটি কিশোরী ও নারী মাসিকের সময় এখনো কাপড় ব্যবহার করে। তাদের অনেকে একই কাপড় বারবার ব্যবহার করে যার অধিকাংশই অপরিষ্কার কাপড়। কিশোরীদের মাত্র ১০ শতাংশ এবং বয়স্ক নারীদের ২৫ শতাংশ মাসিকের সময় স্যানিটারি ন্যাপকিন বা স্বাস্থ্যসম্মত প্যাড ব্যবহার করে। এর পেছনে বিভিন্ন সময় প্যাডের উচ্চ মূল্য, প্যাডের অনুপলব্ধতা, সচেতনতার অভাবসহ বিভিন্ন কারণ চিহ্নিত করা হলেও এই নিয়ে কাজ হয়েছে নামেমাত্র। 

শহরের স্কুল কিংবা বস্তিতেই যখন মাসিকস্বাস্থ্য নিয়ে সচেতনতা আর ব্যবহারযোগ্য ওয়াশরুমের অভাব, তখন দেশের পিছিয়ে থাকা জনগোষ্ঠীগুলোর নারীদের কেমন অবস্থা তা বলার বাকী রাখে না৷ দিনে ৮ ঘন্টা কাজ করা নারী চা-শ্রমিকরা কিংবা নৌকায় বসবাস করা বেদে সম্প্রদায়, যাদের নেই কোনো যথাযথ পানি, স্যানিটেশন এবং স্বাস্থ্যবিধি (ওয়াশ) ফ্যাসিলিটিজ তারাই কীভাবে মাসিকের সময় কোনো স্বাস্থ্যবিধি নিয়ম মানতে পারে? 

মাসিক এখনও বাংলাদেশসহ অনেক দেশেই একটি সামাজিক ট্যাবু হয়েই রয়েছে। ফলে নারীদের সম্মুখীন হতে হচ্ছে জরায়ুমুখের ক্যান্সার, সংক্রমণ, যৌনাঙ্গে ঘা, চুলকানি, অস্বাভাবিক সাদা স্রাব প্রভৃতি শারীরিক সমস্যার। দৈনিক দ্য ডেইলি স্টারের ২০২৩ সালের একটি প্রতিবেদন অনুযায়ী প্রতি বছর দেশে প্রায় ১২ হাজারের বেশি নারী জরায়ুমুখ ক্যানসারে আক্রান্ত হন। মাসিক স্বাস্থ্যবিধি ব্যবস্থাপনার উন্নতি এবং সঠিক শিক্ষা প্রদানের মাধ্যমেই কেবল আমরা এই ট্যাবু ভেঙ্গে এগিয়ে যেতে পারি।

তথ্যসূত্র :

১.https://bbs.portal.gov.bd/sites/default/files/files/bbs.portal.gov.bd/page/b343a8b4_956b_45ca_872f_4cf9b2f1a6e0/2021-02-18-12-34-38806de91fa4ca8d9e70db96ecff4427.pdf

২.https://fr.ircwash.org/sites/default/files/Ahmed-2008-Menstrual.pdf

৩.https://shorturl.at/joqxV 

৪.https://www.tandfonline.com/doi/full/10.1080/13691058.2019.1580768 

৫.https://shorturl.at/dxzWY

পোস্টটি লিখেছেন ফারিয়া রহমান, তিনি আনচার্টেড রেড ওয়াটার্স প্রজেক্টের একজন টিম মেম্বার। 

Menstrual Hygiene Management (MHM) in Bangladesh: A Need for Comprehensive and Inclusive Actions

To read this post in Bangla, click here 

The Bangladesh National Hygiene Survey 2018 found that only six percent of schools in the country provide education on Menstrual Health Management (MHM). In the remaining schools, teachers deliberately avoid discussing the topic, often advising students- “Read this at home!”. The survey also reported that only fifty-three percent of schoolgirls are aware of menstruation. This means that about forty-seven percent of students do not know about menstruation until their first period and those who do often receive inaccurate information, perpetuating superstitions rather than facts.

Survey results consistently indicate poor Menstrual Health Management (MHM) among adolescents, both in urban and rural areas. A baseline study by WaterAid Bangladesh in 2008 found that ninety-five percent of women in Dhaka’s slums used cloth during menstruation. Ten years later, on Menstrual Hygiene Day 2018, a Prothom Alo report indicated that approximately forty-five million girls and women in the country still use clothes during menstruation. Many reuse the same cloth multiple times, often without proper sanitation. Only ten percent of teenage girls and twenty-five percent of older women use sanitary napkins or sanitary pads. Factors such as the high cost of pads, their unavailability, and lack of awareness contribute to this issue, yet little has been done to address it.

When there is a lack of awareness about menstrual health and inadequate washroom facilities in city schools or slums, the situation for women in more marginalized communities is even more dire. For instance, how can women tea workers who work eight hours a day or the Bede community living on boats, who lack proper Water, Sanitation and Hygiene (WASH) facilities, follow any hygiene rules during menstruation?

Menstruation remains a social taboo in many countries, including Bangladesh. Consequently, women face health issues such as cervical cancer, infections, genital sores, itching, and abnormal white discharge. According to a 2023 report by the Daily Star, about twelve thousand women are diagnosed with cervical cancer annually in the country. Improving Menstrual Health Management (MHM) and providing proper education are essential steps towards breaking this taboo and ensuring better health outcomes for women.

Sources:

1.https://bbs.portal.gov.bd/sites/default/files/files/bbs.portal.gov.bd/page/b343a8b4_956b_45ca_872f_4cf9b2f1a6e0/2021-02-18-12-34-38806de91fa4ca8d9e70db96ecff4427.pdf

2.https://fr.ircwash.org/sites/default/files/Ahmed-2008-Menstrual.pdf

3.https://shorturl.at/joqxV

4.https://www.tandfonline.com/doi/full/10.1080/13691058.2019.1580768

5.https://shorturl.at/dxzWY

This post is written by Faria Rahman, a team member of Uncharted Red Waters project. 

Film Star Siam Ahmed Graced Pothchola’s Shelter Home for a Heartwarming Pre-Eid Celebration

৪ বছর বয়সী লাবিবাকে প্রথম যখন ‘জয় সকল শিশু’ শেল্টার হোমে রেখে যাওয়া হল, ওর বয়স তখনও ২ বছর পূর্ণ হয় নি। লাবিবা বড় হতে হতে বুঝতে পারে, পরিবার বলতে এখানে আছে আরো ৮০ জন শিশু।

এই পরিবারের অংশ হয়ে নিজেদের গৎবাঁধা পরিচয় থেকে বেরিয়ে আসার চেষ্টা করছে যৌনকর্মীদের সন্তানেরাও। পরিচয়হীন এসব শিশুকে সমাজের অন্য বাচ্চাদের মতই বড় করে তুলতে, তাদেরকে একটা স্বাভাবিক জীবনের অংশীদার করার লক্ষ্যেই কাজ করছে প্রজেক্ট পথচলা।

শুধু সামাজিক কিংবা পারিবারিক আবহে নয়, বরং সাংস্কৃতিক ও মানসিকভাবে তাদেরকে মূলধারার একজন মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে “পথচলা” বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়ে থাকে। সেই ধারাবাহিকতায় এবারে আমাদের সাথে যুক্ত হয়েছেন জনপ্রিয় অভিনেতা “সিয়াম আহমেদ”।

গিভ বাংলাদেশ ফাউন্ডেশন ও কেকে ফাউন্ডেশনের যৌথ উদ্যোগে ইদ পূর্ববর্তী উদযাপনের জন্য এক বিকেলে তিনি হাজির হয়েছিলেন শিশুদের মাঝে। শিশুদের সাথে লুডু খেলেছেন, পাজল মিলিয়েছেন, আর তাদের সাথে ইফতার করেছেন। এছাড়াও বাচ্চাদের মাঝে বিভিন্ন উপহারসামগ্রী বিতরণ করেছেন। বাচ্চাদের তরফ থেকেও সিয়ামকে একটি উপহার দেয়া হয়।

সিয়াম আহমেদের মতো একজন মূলধারার আইকনের এমন স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ নি:সন্দেহে এই শিশুদের উৎসাহ ও অনুপ্রেরণা যোগাবে।

Paving the Way for Sustainable Livelihoods among Bangladeshi Delta Farmers through Your Zakat Contributions

দেশের প্রান্তিক কৃষকদের কঠিন সংগ্রামের জীবনকে সহজ করতে ২০১৯ সাল থেকে কাজ করে আসছে প্রজেক্ট ফলন। আধুনিক কৃষি কাজের সাথে পরিচয় করিয়ে ফসলের উৎপাদনশীলতা নিশ্চিত করে কৃষকদের ঋণের শেকল থেকে মুক্ত করে টেকসই আর্থিক উন্নতি নিশ্চিত করাই ফলনের লক্ষ্য।

ফলন এর এই লক্ষ্য বাস্তবায়নে সবসময় পাশে আছেন আমাদের দাতা ও শুভাকাঙ্ক্ষীরা। রমজান মাসজুড়ে ২৪-২৫ মৌসুমের জন্য ফান্ডরেইজিং ক্যাম্পেইনে আপনাদের পূর্ণ সহায়তা পেয়ে আমরা আনন্দিত ও কৃতজ্ঞ। কৃষকদের মুখে হাসি ফোটানোর এ যাত্রায় সামিল হওয়ায় আপনাদের জানাই অসংখ্য ধন্যবাদ।

6th Surgery Camp of Thousand Smiles Opens Doors to Transform Lives of Underprivileged Children with Cleft Lip/Palate

Thousand Smiles is going to execute its next surgical camp in May 2024 in Sylhet.

Our expert surgical team will conduct life-changing surgeries on 10 underprivileged children born with cleft lips and palates. P.N. Composite Limited has joined hands with us to make possible this remarkable initiative of bringing a new smile to the faces of these children – free of charge for the families with their generous contribution.

Our endeavour aims not only to treat the physical malformations of these children but also to help them become confident for the days ahead and have better opportunities for a brighter future.

Give Bangladesh Foundation launches an exciting collaboration with the ‘Aga Khan Academy Dhaka’

Give Bangladesh Foundation is both elated and honored to be able to launch an exciting collaboration with the ‘Aga Khan Academy Dhaka’.

The first and most recent milestone of this partnership is the handover of funds raised from the Aga Khan students and authority to GBF, for a greater cause of alleviating water scarcity in the hill tracts. The handover ceremony took place in the Academy premises back on 20th March.

GBF team present on the occasion gave an elevator pitch of the organization to the faculty members and learners of the academy, and expressed their gratefulness to the academy, and pledged to continue generating impact stories throughout Bangladesh.

Together we can create a difference.

Sewing Training Program Keeps Empowering Floating Sex Workers: 14th Batch’s Classes Ongoing in Full Intensity

ভাসমান যৌনকর্মীদের সমাজের মূলধারায় ফিরিয়ে আনতে ‘প্রজেক্ট লড়াই’- এর ‘ক্যাম্পেইন পূর্ব-পশ্চিম’ সেলাই প্রশিক্ষণের আয়োজন করে আসছে গত দুই বছর যাবত।

বর্তমানে চলমান ‘ক্যাম্পেইন পূর্ব-পশ্চিম’ এর চতুর্দশ ব্যাচের ক্লাস, যা শুরু হয়েছে ১০ই মার্চ এবং শেষ হবে ৩০ই এপ্রিল। এই ব্যাচে প্রশিক্ষণ পাচ্ছেন ৮ জন যৌনকর্মী। ট্রেইনিদের প্রোফাইলিং করা হয়েছে ২৬শে মার্চ। প্রতিটি ক্লাসে ট্রেইনিরা সেলাইয়ের বিভিন্ন নিয়মকানুন হাতেকলমে শেখে, যে শিক্ষা তাদের পরবর্তীতে স্বাবলম্বিতা অর্জন করে পেশা পরিবর্তনে সাহায্য করে।

58 towards 1000: Another Milestone Reached upon Successful Execution of the 5th Surgery Camp

Thousand Smiles held its 5th surgical camp on the 10th of March, 2024, in Chapainawabganj.

Our experienced surgical team conducted life-altering surgery for 10 underprivileged children born with cleft lip and palate, at the Lab One Medical Services and Hospital – free of any cost. This significant achievement was made possible through the generosity of L’Usine Fashion Ltd. and Probridhi Apparels Ltd.

Witnessing their new smiles has been immensely fulfilling for the families involved and our team. The impact of this endeavor extends beyond physical transformation, offering these children a renewed opportunity for a brighter future!

We extend our sincere gratitude to our sponsors and well-wishers who have contributed to the success of the Thousand Smiles campaign. Together, we continue to make meaningful strides toward bettering the lives of those in need.